করোনা ভাইরাসে সঙ্কটে দেশের খেটে খাওয়া মানুষের জীবন-জীবিকা ও অর্থনীতির জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১২ বিলিয়ন ডলার (১ লাখ হাজার কোটি টাকা) বরাদ্দ দিয়েছেন, যা দেশের মোট জিডিপির ৩.৩ শতাংশ এমনটাই বলেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। এছাড়া যে দলেরই হোক, ত্রাণে অনিয়ম দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

শুক্রবার (১৭ এপ্রিল) রাজধানীর মিন্টু রোডে সরকারি বাসভবনে সমসাময়িক বিষয়ে বক্তব্য রাখার সময় এ কথা বলেন তিনি।
এ সময় ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আপনারা দেখেছেন বিভিন্ন গণমাধ্যমে ত্রাণের জন্যে বিক্ষোভ হয়েছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। কিন্তু সরকারের কাছে গোয়েন্দা তথ্য আছে, এই বিক্ষোভগুলোর অনেকগুলোর পিছনে রাজনৈতিক ইন্ধন ছিল। লোক ভাড়া করে এনে বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ করানো হচ্ছে।
তিনি আরও বলেন, সরকার সকল দুস্থ মানুষের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দেয়ার জন্যে বদ্ধপরিকর। সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি সিটি করপোরেশন, জেলা প্রশাসন, পুলিশ বাহিনী মানুষের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দিচ্ছে। এছাড়া ত্রাণের জন্যে হট লাইন খোলা হয়েছে। সেখানেও কেউ ফোন করলে ত্রাণ পৌঁছে দেয়া হবে।
এ সময় ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ত্রাণ নিয়ে দুর্নীতির কথা বলা হচ্ছে। বাংলাদেশে ৭০ হাজারের বেশি স্থানীয় প্রতিনিধি আছে। সেখানে কিছু ঘটনা ঘটেছে। একটি ঘটনাও আমাদের কাম্য নয়। এই বিষয়টিকে কঠোর হস্তে দমন করার জন্যে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন। যেখানেই এই ধরনের অনিয়ম পাওয়া যাচ্ছে, সরকার এবং প্রশাসন কঠোর হস্তে দমন করছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন যারা ত্রাণ নিয়ে নয় ছয় করবে তাদের মোবাইল কোর্টে বিচার হবে পরে আরও মামলার সম্মুখীন হতে হবে। এখানে কে কোন দলের কে কোন মতের সরকার সেটি দেখছে না। যাদের নাম এসেছে তাদের দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
এ  সময় বিএনপির উদ্দেশে তিনি বলেন, তারা সরকারের সমালোচনা করে গতানুগতিক বক্তব্যের রাজনীতি চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের প্রতি আহবান জানায়, আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে বৈশ্বিক দুর্যোগ মোকাবেলা করি।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here