আশেকী মাহমুদ

১৯৩৭ সালের জুন মাস, প্রোডাকশন হাউজ মেট্রো-গোল্ডউইন-মায়ার এর হয়ে কাজ শুরু করেন অ্যানিমেটর ও গল্পকথক জোসেফ বারবেরা। সহ-সত্বাধিকারী লুইস বি মেয়ার এর অনুপ্রেরণায় নতুন কমিক চরিত্র সৃষ্টি করতে আদা-জল খেয়ে নামেন জোসেফ। এরপর তিনি পরিচালক উইলিয়াম হ্যানার সাথে মিলে তৈরি করেন এক বিড়াল আর ইঁদুরের গল্প, যারা সর্বক্ষণ লড়াইয়ে লিপ্ত। শর্ট ফিল্মের নাম দেয়া হয় ‘পুস গেটস দ্য বুট’। বিড়ালের নাম রাখা হয় জ্যাসপার আর ইঁদুরের নাম জিঙ্কস, তাদের সাথে ছিল এক আফ্রো-আমেরিকান গৃহপরিচারিকা। শর্ট ফিল্মটি মুক্তি পায় ১৯৪০ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি। শুরু হয় পৃথিবীর ইতিহাসের অন্যতম জনপ্রিয় এক ‘জুটি’র যাত্রা।

জ্যাসপার আর জিঙ্কসকে চিনছেন না? চেনার তেমন কোন কারণ নেই অবশ্য। ‘পুস গেটস দ্য বুট’ মুক্তির আগেই প্রি-প্রোডাকশনে দুই চরিত্রের নাম বদলে রাখা হয় টম এবং জেরি, যাদের চেনে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। ফেব্রুয়ারি ১৯৪০ থেকে ২০০৫ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত টম এন্ড জেরি পর্দায় এসেছে ১৬৩টি পর্বে। এই দীর্ঘ যাত্রায় টম আর জেরিকে পাড়ি দিতে হয়েছে নানান উথান পতন। বিশ্বখ্যাত এই কার্টুনের ৮০ বছর পূর্তি উপলক্ষে eআরকির পাঠকদের জন্য থাকছে মজার কিছু টম এন্ড জেরি ফ্যাক্টস! 

১# কার্টুন হয়েও টম এন্ড জেরি একাডেমি অ্যাওয়ার্ড অর্থাৎ অস্কার জিতেছে ৭ বার। সাথে তাদের ঝুলিতে আছে ৬টি নমিনেশনও। অস্কারপ্রাপ্ত পর্বগুলো হলো, দ্য ইয়াংকি ডুডল মাউস (১৯৪৩), মাউস ট্রাবল (১৯৪৪), কোয়াইট প্লিজ! (১৯৪৫), দ্য ক্যাট কনসার্টো (১৯৪৬), দ্য লিটিল অরফান (১৯৪৮), দ্য টু মাউসকিটারস (১৯৫২) এবং জোহান মাউস (১৯৫৩)।

tom and jerry facts (2)২# টম ও জেরির বাসার সেই আফ্রো-আমেরিকান গৃহপরিচারিকাকে দেখেও যেন দেখা যায় না। অধিকাংশ সময় ঝাটা হাতে পর্দায় আসা এই ভদ্রমহিলার চেহারাটা আমাদের প্রায় অজানাই। তবে ‘স্যাটারডে ইভনিং পুস’ নামে একটি এপিসোডে প্রথম এবং শেষবারের মতন টমের মালিক ম্যামি টু শুজের (Mammy Two Shoes) চেহারা দেখানো হয়। 

৩# প্রথম দিকের এপিসোডগুলোতে টম একটা স্বাভাবিক বিড়ালের মতন চারপায়ে হেঁটে বেড়ালেও ৪০’র দশকের শেষদিক থেকে টম দু’ পায়ে ভর দিয়ে হাঁটতে শুরু করে। প্রথম দিকের এপিসোডগুলোতে টমকে পুরু এবং না-আচড়ানো পশমে দেখা যায়,  জেরির অবস্থা অপরিবর্তনীয় থাকে প্রায় পুরোটা সময়জুড়েই।

tom and jerry facts (1)৪# পরিচালক উইলিয়াম হ্যানা এবং এনিমেটর জোসেফ বারবেরা শুধু টম এন্ড জেরিরই স্রষ্টা নন, বিখ্যাত কার্টুন স্কুবি-ডু, দ্য স্মার্ফস, দ্য ফ্লিন্টস্টোনস এবং ইয়োগি বিয়ার এসব কার্টুনও তাদেরই অমর সৃষ্টি। 

৫# আগেই বলা হয়েছে, টম এন্ড জেরির নাম শুরুতে ছিল জ্যাসপার আর জিঙ্কস। পরে এমজিএম স্টুডিও আয়োজিত এক প্রতিযোগিতার মাধ্যমে টম এন্ড জেরির নতুন নামকরণ করেন জন কার। নামকরণ করতে গিয়ে তিনি পেয়েছিলেন ৫০ ডলার পুরস্কার। এর আগে ‘টম এন্ড জেরি’ নামটি ছিল মূলত ক্রিসমাসের সময়কার এক প্রকার মিক্সড ড্রিঙ্কসের।

tom and jerry facts (1)৬# প্রথম পর্বটিই এখন পর্যন্ত টম এন্ড জেরি নিয়ে বানানো শর্ট ফিল্মগুলোর মধ্যে সবচেয়ে দীর্ঘ। নয় মিনিট ৮সেকেন্ডের এপিসোডটি ইউটিউবে তিনটি পর্বে ভাগ করে আপলোড করা হয়েছে এই চ্যানেলে। 

৭# দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, টম আর জেরিকে একটি এপিসোডে আত্মহত্যা করতেও দেখা গেছে। ‘ব্লু ক্যাট ব্লুজ’ নামের এপিসোডটির শেষ দিকে টম আর জেরিকে প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হয়ে রেল রোডের উপর হতাশ ও নিঃস্ব হয়ে বসে থাকতে দেখা যায়। তখন একটি ট্রেন এগিয়ে আসতে থাকে। দ্রুতগতির ট্রেন ধেয়ে আসছে আর তীক্ষ্ণ সরে ট্রেনের হুইসল বাজছে এমন সময় কার্টুনটির শেষ দৃশ্য আস্তে আস্তে ফিকে হয়ে আসে। এপিসোডটি দেখে তখন অনেক দর্শক অনুমান করে নেন যে টম এন্ড জেরি ট্রেনটিকে আসতে দেখেও লাইন থেকে সরে যায়নি, অর্থাৎ তারা আত্মহত্যা করেছে। এই পর্বটি পরবর্তীতে অনেক আলোচনার ঝড় তুলেছিল। 

৮# টম এন্ড জেরির প্রথম মুভি মুক্তি পেয়েছিল ১৯৪০ সালে। সেই হিসেবে টম আর জেরির বয়স হলো ৮০ বছর। সুতরাং টম এন্ড জেরি কে এখন আমরা টম দাদু আর জেরি দাদু বলে ডাকতেই হয়ত পারি। নাকি?

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here